Skype Tech Cloud
Free Trial at Tech Cloud

কীভাবে স্টক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম আপনার ব্যবসার গতিপথ বদলে দিতে পারে?

কীভাবে স্টক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম আপনার ব্যবসার গতিপথ বদলে দিতে পারে?

গল্পটি ধরুন এরকম – আপনার একটি সুপারশপের ব্যবসা আছে। প্রতিদিন আপনার স্টোরে অনেক পণ্য এসে গুদামজাত হয়। সেই হিসাব রাখার জন্য আপনি লোকবল নিয়োগ করেছেন। কিন্তু তারপরেও দোকানের পণ্যভাণ্ডারের সঠিক হিসাব রাখা সম্ভব হচ্ছে না। প্রায়ই বিভিন্ন পণ্যের সামনে “স্টক-আউট” সাইন ঝুলাতে হচ্ছে। এক্ষেত্রে আপনার জন্য সমাধান একটাই – স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার।

স্টক ম্যানেজমেন্ট হলো ব্যবসায় ব্যবহৃত সকল পণ্যের হিসাব রাখা। ৫০ হাজার বছর আগের পুরনো টালীখাতার যুগ ছেড়ে, তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পণ্যের হিসাব রাখায়, যুক্ত হয়েছে স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার সিস্টেম। বিক্রয়কেন্দ্রিক ব্যবসায়ের পণ্যের হিসাব সংরক্ষণে এই সফটওয়্যারের গুরুত্ব অপরিসীম।

তথ্য ও প্রযুক্তির ব্যবহার আপনার ব্যবসার প্রসার ও উন্নতির জন্য জরুরি। অনেক ব্যবসায়ী তথ্য ও প্রযুক্তির উপর বিনিয়োগ করে থাকেন। কিন্তু সঠিক ব্যবহার না জানার ফলে সেই বিনিয়োগটি থেকে অধিক ROI নিশ্চিত করতে পারেন না। যেকোন ব্যবসার জন্য স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার কেনার পূর্বে এ সম্পর্কে অবশ্যই বিস্তারিত জেনে নেওয়া উচিৎ।

স্টক ম্যানেজমেন্ট কি?

একেবারে সহজ ভাষায় স্টক ম্যানেজমেন্ট বা ব্যবস্থাপনা হলো আপনার ব্যবসায় ব্যবহৃত ও বিক্রয়যোগ্য সকল পণ্যের হিসাব রাখা এবং সঠিক ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা। অতিরিক্ত মজুদ ও স্টক-আউট সমস্যার সবচেয়ে সহজ সমাধান হলো স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার।

স্টক ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের প্রকারভেদ

পণ্য ব্যবস্থাপনার প্রয়োজনীয়তা অনুযায়ী স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেমকে দুইভাগে ভাগ করা যায় – 

১। পণ্য উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত সকল কাঁচামালের ব্যবস্থাপনা। 

২। উৎপাদিত পণ্যের ব্যবস্থাপনা। 

আপনি যদি উৎপাদিত পণ্য সরাসরি ক্রয় করে বিক্রয় করে থাকেন, তাহলে আপনার কাঁচামাল ব্যবস্থাপনার কোন প্রয়োজন নেই। সেক্ষেত্রে পণ্য মজুদ ও বিক্রয় সংক্রান্ত সকল তথ্য এক ক্লিকে পেতে স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার ব্যবহারের জুড়ি নেই। 

কিন্তু পণ্য উৎপাদনকারী সকল ব্যবসার জন্য কাঁচামাল ও উৎপাদিত পণ্যের সঠিক ব্যবস্থাপনার জন্য উপরে উল্লেখিত দুই ধরনের স্টক ব্যবস্থাপনা সিস্টেমই প্রয়োজন।

কারা স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন?

প্রকৃত অর্থে সকল পণ্য উৎপাদনকারী ও বিক্রয়কারী ব্যবসার ক্ষেত্রে স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারটি গুরুত্বপূর্ণ। বিখ্যাত জরিপ প্রতিষ্ঠান স্ট্যাটিস্টার মতে, ২০১৬ থেকে ২০১৭ তে স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারের (ওয়্যারহাউস ম্যানেজমেন্ট) ব্যবহার প্রায় ২৫ শতাংশ বেড়েছে

যেকোন পণ্যভিত্তিক ব্যবসার জন্য এই সফটওয়্যার অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ। তবে নিম্নে উল্লেখিত ব্যবসাগুলোর ক্ষেত্রে স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার এর ব্যবহার সবচাইতে বেশি হয়ে থাকে –

১। পোশাক বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান/ফ্যাশন হাউস

যেকোন অনলাইন বা অফলাইন পোশাক বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান বা ফ্যাশন হাউসের জন্য স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খুব সম্প্রতি একটা গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে এই সফটওয়্যার ব্যবহার না করার কারণে পোশাকালয়গুলোর মোট পরিচালনা খরচ বহুগুণে বৃদ্ধি পেয়েছে। 

তিনটি কারণে প্রতিটি পোশাক ব্যবসার নিজস্ব স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেম থাকা দরকার – 

  • যেকোন পোশাকের স্টক শেষ হওয়ার আগেই তা সম্পর্কে জানা। 
  • কোন ধরনের পোশাক বেশি বিক্রি হচ্ছে সেই সম্পর্কে ধারণা পাওয়া। 
  • কোন মৌসুমে কোন ধরনের পোশাক বা ফেব্রিক বেশি বিক্রয় হচ্ছে তা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া এবং শেষ হওয়ার আগেই সেই পণ্যের স্টক নিশ্চিত করা।

২। ই-কমার্স স্টোর।

একটি পরিপূর্ণ স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেম ছাড়া যেকোন ই-কমার্স স্টোর অপরিপূর্ণ। কারণ এক জরিপে দেখা যায়, অনলাইনে প্রায় ৭০ শতাংশের উপরে ক্রেতা একটি শপের আউট-অফ-স্টক পণ্য অন্য শপে খুঁজে থাকেন। 

তিনটি কারণে প্রতিটি ই-কমার্স ব্যবসার নিজস্ব স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার থাকা প্রয়োজন – 

  • পণ্য সংক্রান্ত সকল তথ্য ক্রেতার কাছে পরিষ্কার রাখতে প্রতিটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানকে স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ব্যবহার করা উচিৎ। 
  • কতৃপক্ষের কাছে আপনার ব্যবসা সম্পর্কে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে একটি পরিপূর্ণ স্টক ব্যবস্থাপনা সিস্টেমের জুড়ি নেই। 
  • আপনার স্টোরের সকল পণ্যের রিয়েল-টাইম ম্যানেজমেন্ট করার জন্য প্রতিটি ই-কমার্স স্টোরকে নিজস্ব স্টক ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যার ব্যবহার করা উচিৎ।

৩। গ্রোসারি শপিং স্টোর বা সুপারশপ। 

বিখ্যাত জরিপ প্রতিষ্ঠান স্ট্যাটিস্টা এর তথ্যমতে, ২০১৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় ৩২ শতাংশ গ্রোসারি দোকানগুলো পণ্য-ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে রিয়েল-টাইম স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারের উপরেই বেশি ভরসা করে। 

তিনটি কারণে সুপারশপগুলোতে স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার থাকা জরুরি – 

  • চাহিদা সাপেক্ষে মজুদকৃত পণ্যের সঠিক ও যথোপযুক্ত ব্যবস্থাপনা। 
  • কম্পিউটারাইসড্‌ পয়েন্ট-অফ-সেইল সিস্টেমের মাধ্যমে লেনদেনের ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা বজায় রাখুন।
  • সহজ উপায়ে মূল্য নির্ধারণ ও ডিসকাউন্ট হিসাব করুন। 
স্টক ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কিত কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

৪। বিল্ডিং নির্মাণের মালামাল বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান।

বিল্ডিং নির্মাণের ক্ষেত্রে বহু কাঁচামালের প্রয়োজন হয় – যেমন টাইলস্‌, রড্‌স, সিমেন্ট ইত্যাদি। এই সকল কাঁচামাল যারা বিক্রয় করেন সেই সকল ব্যবসায় স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেম প্রয়োজন হয়। সর্বোপরি, আপনার দোকানের ক্রয়-বিক্রয়ের হিসাবখাতার কম্পিউটারাইজড্‌ সমাধানই হলো স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার। 

নিম্নলিখিত কারণে বিল্ডিং তৈরীর কাঁচামাল বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানগুলোর স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারের প্রয়োজন হয় – 

  • আপনার ব্যবসার সব সাপ্লায়ার বা সরবরাহকারীদের এক নজরেই পরিচালনা করুন। 
  • মালামাল শেষ হওয়ার আগেই স্টক নিশ্চিত করুন। 
  • ভালো মানের স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেমের মাধ্যমে পণ্যের কোয়ালিটি কন্ট্রোলের প্রক্রিয়াও সহজতর হয়।

৫। ইলেকট্রনিক্স মালামাল বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান।

এম.আর.সি বাংলাদেশের প্রকাশিত এক গবেষণাপত্র থেকে জানা যায় যে ২০২৫ নাগাদ বাংলাদেশের কনসিউমার ইলেকট্রনিক্স এর বাজার প্রায় ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। এই বিশাল বাজারের সঠিক ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে প্রতিটি ইলেকট্রনিক্স দোকানগুলোর নিজস্ব স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার নিশ্চিত করতে হবে।

স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার ছাড়া বিশাল চাহিদার এই বাজারে টিকে থাকা কঠিন হবে। নিম্নোক্ত তিনটি কারণে সকল ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায় এই সফটওয়্যার থাকা আবশ্যক – 

  • বিক্রয় ও লেনদেন প্রক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার জরুরি। 
  • আপনার প্রতিদ্বন্দ্বীর সাপেক্ষে আপনার বিক্রয় ও লাভের হিসাব রাখার জন্য স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার জরুরি। 
  • ইলেকট্রনিক্স পণ্যের ওয়ারেন্টি ব্যবস্থাপনা স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার সহজতর করে। তাছাড়াও ফেরত দেওয়া পণ্যের সহজ ব্যবস্থাপনার জন্যও এই সফটওয়্যার ব্যবহার করা যায়।

কেন স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ব্যবহার করবেন?

এক কথায় স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার ব্যবসার মজুদভান্ডারের পুরো চিত্রটাকে একটি ফ্রেমে নিয়ে আসে। তাছাড়া এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে ব্যবসার বিক্রয় প্রক্রিয়ার উপরে নজরদারি সহজতর হয়। শুধু তাই নয়, আধুনিক স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারে আরো অনেক মূল্যবার ফিচার থাকে যা ব্যবস্থাপনা-সংক্রান্ত অনেক জটিল সমস্যার এক-ক্লিক সমাধান দেয়। 

মোট কথা, আধুনিক স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেম দ্বারা ব্যবসার মজুদ থেকে শুরু করে বিক্রয় এবং ক্রেতাসেবা পর্যন্ত সকল সমস্যার সমাধান সহজভাবে পাওয়া যায়। 

তাছাড়াও এই সফটওয়্যারের আরো কিছু সুবিধা আছে – 

  • মানবিক ভুল এড়িয়ে দক্ষভাবে আপনার ব্যবসার মজুদভান্ডারের সকল তথ্য নিমিষেই পাওয়া যায়। 
  • অতিরিক্ত বা অল্প বিক্রয় সমস্যা নির্ণয় ও সমাধান করতে বড় বড় কোম্পানিগুলো ভালো মানের স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকে। 
  • সর্বোপরি, ব্যবসার পুরো খরচকে কিভাবে আরো কমানো যায় তার একটি বিশদ চিত্র স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার থেকে পাওয়া যায়।

বিশ্বখ্যাত অনলাইন বিকিকিনির প্রতিষ্ঠান অ্যামাজন, ওয়ালমার্ট কিংবা ই-বেতে আছে অনেক অনেক ‘মার্চেন্ট স্টোর’। সারা বিশ্ব থেকে স্টোরগুলোর মার্চেন্টরা তাঁদের পণ্য এই প্ল্যাটফর্মগুলোর মাধ্যমে বিক্রি করেন। কিন্তু স্টোর ব্যবস্থাপনা, কাস্টমার সার্ভিস, উপাত্ত বিশ্লেষণের কাজ করতে গেলে স্টোরগুলো তাদের পণ্য উৎপাদন বা মূল কাজে পিছিয়ে পড়ে। এ কারণে তারা খোঁজে খায়রুলের মতো তরুণদের—যারা কিনা তাদের হয়ে গ্রাহকসেবা তথা অর্ডার গ্রহণ ও প্রক্রিয়াকরণ করা, গ্রাহকের অবস্থানভেদে লজিস্টিক বা কুরিয়ার সার্ভিস ঠিক করা, স্টোর থেকে শিপিং করার জন্য শিপিং লেবেল প্রিন্ট করে সেটি যথাযথ প্যাকেজে সেঁটে দেওয়া, তদারকি করা—এই কাজগুলো করবে। একই সঙ্গে তারা তাদের হয়ে কল সেন্টারও চালাবে। প্রতিটি স্টোরের পক্ষে একা একা এই কাজগুলো করা কঠিন ও কষ্টসাধ্য।

স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারে কি কি ফিচার থাকে? 

স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার নির্মাতাভেদে ফিচারগুলো ভিন্ন হয়। তবে একটি ভালো সফটওয়্যারে নিমোক্ত ফিচারসমূহ থাকা আবশ্যক –

১। স্মার্ট স্টোর ম্যানেজমেন্ট ড্যাশবোর্ড 

স্টক ম্যানেজমেন্ট ড্যাশবোর্ডে মূলত ১০ টি প্রধান সূচক থাকে – 

  • অর্ডার লিস্ট – আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিনের। 
  • সর্বমোট পেন্ডিং অর্ডার – আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিনের। 
  • মোট পূরণকৃত অর্ডারের তালিকা – আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিন অনুযায়ী।
  • সকল ক্রয়কৃত পণ্যের পরিমাণ – আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিন সাপেক্ষে।
  • আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিনের সমস্ত বিক্রয়কৃত পণ্যের পরিমাণ। 
  • আজকের বা যেকোন নির্দিষ্ট দিনের সকল পণ্যের পরিমাণ।
  • আপনার স্টোরের এযাবৎকাল পর্যন্ত সকল ক্রয়কৃত পণ্যের পরিমাণ।
  • আপনার স্টোরের মোট বিক্রয়কৃত পণ্যের পরিমাণ, মোট পণ্যের পরিমাণ এবং মোট অপরিশোধিত মূল্য।
স্টক ম্যানেজমেন্ট সফট্‌ওয়্যার ড্যাশবোর্ডের একটি নমুনা

২। পণ্যের লিস্ট সহজভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা

স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারের মূল লক্ষই হচ্ছে ব্যবসায় ব্যবহৃত ও উৎপাদিত সকল পণ্যের এক-ক্লিকেই রক্ষণাবেক্ষণ করা। এর জন্য কিছু নির্দিষ্ট ফিচার থাকে যেমন – 

  • পণ্যের মজুদ আছে কি নেই তা সম্পর্কে জানা। 
  • পণ্যের বিভিন্ন তথ্য পরিবর্তন করা। 
  • পণ্য সম্পর্কিত সকল তথ্য ডিলিট করা। 
স্টক ম্যানেজমেন্ট সফট্‌ওয়্যারে আপনার ব্যবসার পণ্যের লিস্ট দেখে পণ্যভান্ডারের সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ করা যায়

৩। ক্রয়কৃত পণ্যের লিস্ট 

ক্রয়কৃত পণ্যের লিস্ট দেখতেও স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়। মূলত তিনটি বিষয় সম্পর্কে জানতে এই ফিচারটি ব্যবহার করা হয় – 

  • ক্রয়কৃত পণ্যের নাম ও ভেন্ডর বা যার কাছ থেকে নিয়েছেন তার সম্পর্কে জানা। 
  • কতটি পণ্য কেনা হয়েছে তা সম্পর্কে জানা।
স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যারের মাধ্যমে খুব সহজভাবে ক্রয়কৃত পণ্যের লিস্ট দেখুন

৪। স্মার্ট অর্ডার ম্যানেজমেন্ট 

স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যারের মাধ্যমে অর্ডার সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য সহজেই জানা যায়। আপনার স্টোরের প্রতিটি অর্ডার সম্পর্কিত তথ্য এই সফট্‌ওয়্যার থেকে একটি ক্লিকেই পেতে পারে। যেমন –

  • অর্ডার আইডি 
  • কাস্টমারের ফোন নাম্বার 
  • মোট অর্ডারের পরিমাণ 
  • মোট মূল্যের পরিমাণ 
  • পণ্যটি ক্রেতার কাছে পৌঁছানো বিষয়ক তথ্য ইত্যাদি
স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যার থেকে অর্ডার ব্যবস্থাপনার একটি চিত্র

৫। মূল্য পরিশোধ করেননি এমন কাস্টমাদের তালিকা 

স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারের ড্যাশবোর্ডে মোট অপরিশোধিত মূল্যের পরিমাণটি প্রকাশ করা হয়। তাছাড়াও কোন কাস্টমারের কত টাকা অপরিশোধিত রয়েছে তাও এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে জানা যায়।

স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যারে মূল্য অপরিশোধিত রাখা কাস্টমারদের তথ্য সহজেই দেখা যায়

৬। গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন রিপোর্ট

স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারে বিভিন্ন ধরনের রিপোর্ট পাওয়া যায়, যেমন – 

  • সেইল বা বিক্রয়নামার রিপোর্ট 
  • স্টক বা মজুদভাণ্ডারের রিপোর্ট 
  • পণ্যের রিপোর্ট 
  • কাস্টমার বা ক্রেতা-সংক্রান্ত সকল তথ্যের রিপোর্ট
  • পণ্যের ক্যাটাগরি-সংক্রান্ত রিপোর্ট 
  • স্টোর-সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্যের রিপোর্ট 
  • আপনার সকল ভেন্ডর বা ক্রয়কারীদের রিপোর্ট
  • ট্রানসেকশান বা লেনদেন-সংক্রান্ত রিপোর্ট
স্টক ম্যানেজমেন্ট সফট্‌ওয়্যার থেকে পাওয়া বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রিপোর্টের তালিকা

৭। স্মার্ট বারকোড ম্যানেজমেন্ট এবং প্রিন্টিং 

বারকোড স্ক্যানিং আধুনিক স্টক ব্যবস্থাপনা সিস্টেমের একটি সময়োপযোগী সংযোগ। আপনার ব্যবসায় ব্যবহৃত সকল পণ্যের বারকোডের তালিকা রাখাসহ প্রিন্টিং সুবিধা পাবেন স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারে।

স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যার থেকে পণ্যের বারকোডগুলো সহজেই ম্যানেজ করা যায়

৮। পুরো অর্ডার প্রক্রিয়ার সহজ ম্যানেজমেন্ট 

অর্ডার ট্র্যাক থেকে পুরো প্রক্রিয়ার প্রতিটি অংশ স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারের মাধ্যমে সহজেই করা যায়। তাছাড়াও টেক ক্লাউডের স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যারের মাধ্যমে পয়েন্ট-অফ-সেইল সিস্টেমে সহজেই অর্ডার ও লেনদেনের সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা যায়। 

স্টক ব্যবস্থাপনার সফট্‌ওয়্যারের মাধ্যমে আপনার স্টোরের লেনদেনের প্রক্রিয়াটি একটি ক্লিকেই সম্পন্ন করা যায়
ডিজিটাম লেনদেনের রসিদের একটি নমুনা

এই সাতটি ফিচার একটি ভালো স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারে প্রাধান্য পায়। তারপরেও আরো কিছু ফিচার থাকা প্রয়োজন। যেমন টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যারের মাধ্যমে আপনি এক ক্লিকেই আপনার স্টোরের সব শাখার মজুদভান্ডার ও পণ্যের বিক্রয় প্রক্রিয়াগুলো নির্বিঘ্নে পরিচালিত করতে পারবেন। 

তাছাড়াও আপনার বিক্রয় ও লেনদেন প্রক্রিয়া স্মার্ট পয়েন্ট-অফ-সেইল সিস্টেমের মাধ্যমে আরো দ্রুত ও দক্ষ করবে টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার

কেইস স্টাডি – রোদেলা মুদি বাজার অনলাইন স্টোর 

সমস্যা সনাক্তকরণ 

রোদেলা মুদি বাজার – বর্তমানে বাংলাদেশে একটি উদীয়মান বিপণনকেন্দ্র। চকোলেট থেকে শুরু করে ইলেকট্রনিক্স পর্যন্ত সব ধরনের পণ্যই এখানে পাওয়া যায়। কিন্তু কোন স্টক ব্যবস্থাপনা সিস্টেম না থাকার কারণে বছরের শেষে এই স্টোরটি অনেক সমস্যায় পড়তো।

একটি একটি করে পণ্যের হিসাব রাখার জন্য তাঁদের আলাদ আকরে লোকবল নিয়োগ করতে হতো। তারপরেও স্টক ও বিক্রয় প্রক্রিয়ার সকল হিসাব মেলাতে রোদেলা মুদি বাজারের সংশ্লিষ্ট সকলের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হতো।

অতিরিক্ত খরচ থেকে শুরু করে লক্ষ্য থেকে কম বিক্রিত পণ্যসহ আরো বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত ছিল এই ব্যবসাটি। তাই তাঁরা টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সমাধান নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলো। 

স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার ব্যবহারের পর কি পরিবর্তন এলো? 

টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার সমাধান ব্যবহারের পর রোদেলা মুদি বাজারের ব্যবসায় পুরো প্রক্রিয়ায় আমূল পরিবর্তন এলো। ব্যবসাটির পণ্যভাণ্ডারের ব্যবস্থপনা হয়ে গেলো পানির মতো সহজ। ব্যবসাটির মোট খরচের পরিমাণ অনেকাংশে কমে এলো এবং বিক্রয়ও বেড়ে গেলো। পণ্যের সকল স্টক শেষ হওয়ার পূর্বেই নিশ্চিত করা সহজতর হলো।

লেনদেন প্রক্রিয়া ও অর্ডার ট্র্যাকিং করাও সহজ হলো।

স্টক ব্যবস্থাপনার সাথে এ্যাকাউন্টিং সফটওয়্যার সমাধান যোগ করা গেলে পণ্যের হিসাব হতো আরো সহজে!

টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার কেন অন্যদের থেকে আলাদা? 

মূলত তিনটি কারণে টেক ক্লাউডের স্টক ব্যবস্থাপনার সফটওয়্যার অন্যদের থেকে আলাদা – 

  • টেক ক্লাউডের স্টক ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার সমাধানে কোন ফাঁকি নেই। 
  • ক্লায়েন্টের জন্য ব্যবসার প্রক্রিয়া সহজ করার জন্যই টেক ক্লাউড স্টক ব্যবস্থাপনার সিস্টেমটি অত্যন্ত সহজ ও ব্যবহারোপযোগী করে বানানো হয়েছে। 
  • শুধু স্টক ব্যবস্থাপনাই নয়, আরো অনেক সংশ্লিষ্ট উপকারী ফিচার দিয়ে সফট্‌ওয়্যারটি তৈরী করা হয়।